জানুয়ারি ২০, ২০২১

হাড়ের সংযোগ সুস্থ রাখার উপায়

১ min read
হাড়ের সংযোগ সুস্থ রাখার উপায়

হাড়ের সংযোগ সুস্থ রাখার উপায়

জবাবদিহি ডেস্ক: চলাফেলা ও দৈনিক কাজকর্ম স্বাভাবিক রাখতে সুস্থ হাড় ও এর সংযোগস্থলের সুস্থতা জরুরি। তাই হাড় ও এর সংযোগগ্রন্থি সুস্থ রাখতে বেশ কিছু বিষয় মেনে চলা উচিত। স্বাস্থ্য-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে হাড়ের সংযোগ সুস্থ রাখার উপায় সম্পর্কে জানান হল।

সঠিক খাদ্যাভ্যাস: ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি হাড় দৃঢ় ও সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। দুধের তৈরি খাবার ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ। তবে এর অন্যতম ভালো উৎস হল সবুজ শাক সবজি।

স্বাস্থ্যকর চর্বি হাড়ের সংযোগস্থলকে আর্দ্র রাখে। চর্বি বহুল মাছ যেমন- টুনা, স্যামন; বিভিন্ন ধরনের বাদাম যেমন- কাঠবাদাম, আখ্রোট এছাড়া তিসি ও চিয়া বীজ ও জলপাইয়ের তেল খাবারে যোগ করুন। এছাড়াও, শস্য, কন্দ, সবজি, রঙিন ফল, মটর ও বীজ হাড়ের জন্য উপকারী।

ওজন নিয়ন্ত্রণ: ওহন বৃদ্ধি পেলে কোমড়, হাঁটু ও গোড়ালিকে বেশি ভর বহন করতে হয়। ফলে চাপ বেশি পড়ে। বাড়তি ওজন কমিয়ে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা হাড়ের সংযোগস্থলের ওপর চাপ কমায় ও হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি হ্রাস করে। খাদ্যাভ্যাসের পরে শরীরে সবচেয়ে বেশি প্রভাব রাখে শরীর চর্চা। তাই শরীরকে সচল রাখতে নিয়মিত চলাফেরা ও অনুশীলন করা জরুরি।

* দীর্ঘক্ষণ একইভাবে একই জায়গায় বসে না থেকে মাঝে মঝে চলাফেরার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

* হালকা শরীরচর্চা যেমন- হাঁটা চলা, সাইকেল চালানো, সাঁতার কাটা ও ‘স্ট্রেচিং’ করুন।

* ওজন কমায় এমন শরীরচর্চার পাশাপাশি শক্তি বাড়ায় এমন ব্যায়ামও করা জরুরি।

* ব্যায়ামের সময় হাড় ও সংযোগস্থলের যেন কোনো আঘাত না লাগে সেদিকে খেয়াল রেখে নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

* অনেক দিন পরে যদি নতুন করে শরীরচর্চা শুরু করেন তাহলে ধীরে ধীরে আবার অভ্যাসে পরিণত করুন।

* সবসময় সঠিক পদ্ধতি ও দেহভঙ্গিতে ব্যায়াম করুন। এতে আঘাত পাওয়ার ঝুঁকি কমবে। ওজন তোলার ক্ষেত্রে সঠিক দেহভঙ্গি অনুসরণ করা ও সে অনুযায়ী চর্চা করা জরুরি।

১ thought on “হাড়ের সংযোগ সুস্থ রাখার উপায়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *