জুলাই ৩১, ২০২১

স্বাধীনতা: সোনার বাংলা বিনির্মাণ

১ min read

শফী আহমেদ : “শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে, রবীন্দ্রনাথের মতো দৃপ্ত পায়ে হেঁটে অতঃপর কবি এসে জনতার মঞ্চে দাঁড়ালেন। তখন পলকে দারুণ ঝলকে তরীতে উঠিল জল, হৃদয়ে লাগিল দোলা, জনসমুদ্রে জাগিল জোয়ার সকল দুয়ার খোলা। কে রোধে তাঁহার বজ্রকন্ঠ বাণী? গণসূর্যের মঞ্চ কাঁপিয়ে কবি শোনালেন তাঁর অমর-কবিতাখানি : ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। সেই থেকে স্বাধীনতা শব্দটি আমাদের।”

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমরা স্বাধীনতা লাভ করেছি। তাঁর ৭ই মার্চের ভাষণের ‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’ আমাদের স্বাধীনতার মূলমন্ত্র। এর আগে স্বাধীনতার যে চেতনা সেটা হচ্ছে নিভের্জাল গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, শোষণমুক্ত, বৈজ্ঞানিক ও মানবিক সমাজই আমাদের স্বাধীনতার মূল চেতনা।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপনের ক্ষণে অধ্যাপক রেহমান সোবহান তাঁর একটি লেখায় বলেছেন, সংগ্রামের আগে তিনি ছয় দফা প্রণয়ন ও অন্যান্য কাজে জড়িত ছিলেন। সেই চেতনায় তিনি বলেছেন, পঞ্চাশ বছরেও আমরা একটা নির্বাচনের সংস্কৃতি গড়ে তুলতে পারি নাই।” এটি সত্য।

তিনি উল্লেখ করেছেন, “১৯৯১ সালে একটা অর্থবহ নির্বাচন হয়েছিল। এর আগে পরে আর অর্থবহ নির্বাচন হয়নি। নির্বাচনের সুফল আমরা ঘরে তুলতে পারি নাই। উন্নয়নের অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো। কিন্তু উন্নয়নের অগ্রগতি হচ্ছে অবকাঠামোর মধ্য দিয়ে। কিন্তু স্বাধীনতার মূল চেতনা, গণতান্ত্রিক সমাজ বিনির্মাণ, অসাম্প্রদায়িক ও বৈষম্যহীন সমাজ বিনির্মাণ। বর্তমানে সেখানে দুর্নীতি, ধর্মান্ধতা, মৌলবাদ ও অপসংস্কৃতি বাসা বেঁধেছে।

আমরা চেয়েছিলাম, বিজ্ঞানভিত্তিক একখমুী শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তুলতে। কিন্তু সেখানে আমরা পিছিয়ে গেছি। শিক্ষার মান বিশ্বমানের পর্যায়ে তুলতে পারিনি। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বৈষম্যও তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। যে গরিব, সে আরো গরিব হচ্ছে, মধ্যবিত্তরা নিম্নমধ্যবিত্ত হচ্ছে আর কিছু মধ্যবিত্ত উচ্চবিত্ত হচ্ছে।

ফলে সমাজে বৈষম্যের আকারটা প্রকট হয়ে উঠছে। এটা আমাদের মুক্তিযুদ্ধেও চেতনার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়। সব মিলিয়ে বলা যায়, আমাদের স্বাধীনতার যে আকাক্সক্ষা, তা পরিপূর্ণ হয়নি। তাকে পরিপূর্ণ করতে হলে গণতান্ত্রিক সমাজ বিনির্মাণ করতে হবে এবং সেই লক্ষ্যে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে এবং তাতেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণ সফল ও সার্থক হবে।

লেখক : রাজনীতিবিদ ও সাবেক ছাত্রনেতা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *