সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১

সম্রাটকে ডিবি কার্যালয় থেকে র‌্যাবের কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে

১ min read

Rapid Action Battalion (RAB) escort ruling party leader Ismail Hossain Samrat following his arrest in Dhaka on October 6, 2019. - A prominent Bangladesh ruling party politician with alleged links to the capital's underworld was arrested on October 6 in a sweeping anti-graft drive championed by the prime minister, amid corruption accusations against her government. (Photo by STRINGER / AFP)

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশের ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেফতার যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটকে ডিবি কার্যালয় থেকে র‌্যাবের কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে।বিকাল ৪টার দিকে ক্যাসিনোর গডফাদার সম্রাটকে র‌্যাব-১ এর কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয় বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান ভূঁঞা।বুধবার রাতে মামলা দুটি তদন্ত করার আদেশ পাওয়ার পরই সম্রাটকে ডিবি কার্যালয় থেকে র‌্যাব-১ এর কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে।তার আগে গত ১৫ অক্টোবর মঙ্গলবার অস্ত্র ও মাদকের দুটি মামলায় সম্রাটকে ৫ দিন করে ১০ দিন এবং তার সহযোগী আরমানকে মাদক মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।গত ১৫ অক্টোবর রমনা থানায় দায়ের করা মাদক ও অস্ত্র মামলায় মঙ্গলবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একই সঙ্গে মাদক মামলায় যুবলীগের এই শাখার বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি এনামুল হক আরমানকে পাঁচদিনের রিমান্ড দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত ৭ অক্টোবর (সোমবার) সম্রাটের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করে র্যা পিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। উভয় মামলার এজাহারে বলা হয়েছে- মতিঝিল, আরামবাগ, ফকিরাপুল ও পল্টনসহ রাজধানীতে ১০টি ক্লাবে ক্যাসিনো ব্যবসা ছিল সম্রাটের। সবার কাছে সে ‘ক্যাসিনো সম্রাট’ হিসেবে পরিচিত। পাশাপাশি, দলীয় পদের অপব্যবহার করে চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি করতো। কেউ চাঁদা দিতে না চাইলে তাকে ধরে নিয়ে নির্যাতন করতো তার ক্যাডাররা। সম্রাটের কার্যালয় থেকে র‌্যাব অবৈধ অস্ত্র, মাদকসহ নির্যাতন করার জন্য ইলেকট্রিক শকড দেয়ার মেশিন উদ্ধার করেছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। ৬ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রামে আত্মগোপনে থাকা সম্রাটকে গ্রেফতার করা হয়। তার সঙ্গে আরমানকেও গ্রেফতার করা হয়। পরে ঢাকায় এনে তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদও করে র‌্যাব। ৬ অক্টোবর দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্ব একটি দল কাকরাইলে ভূঁইয়া ট্রেড সেন্টারে সম্রাটের কার্যালয়ে অভিযান শুরু করে। এদিন নিজ কার্যালয়ে পশুর চামড়া রাখার দায়ে তার ছয় মাসের জেল দিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম। এর পর সম্রাটকে কারাগারে পাঠানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *