আগস্ট ৫, ২০২১

মক্তবের ছাত্রীকে ধর্ষণ, ইমামের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

১ min read
মক্তবের ছাত্রীকে ধর্ষণ, ইমামের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

মক্তবের ছাত্রীকে ধর্ষণ, ইমামের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

ময়না আকন্দ, জামালপুর :  জামালপুরের ইসলামপুরে ৭বছরের মক্তবের শিশু ছাত্রীকে ধর্ষন করায় মসজিদের ইমামকে যাবজ্জীন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

সোমবার বেলা ১২টা ১০ মিনিটে মক্তবের ইমাম সাইফুল ইসলামকে (২২) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এম আলী আহমেদ এই রায় দেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি মো: আকরাম হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। রায় ঘোষনার পর আসামী হাফেজ মো: সাইফুল ইসলামকে কারাগারে প্রেরন করা হয়।

সাজা পাওয়া হাফেজ মো: সাইফুল ইসলামের বাড়ি জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার মোহাম্মদপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামে। তিনি মোহাম্মদপুর পূর্ব পাড়া জামে মসজিদের ইমাম ছিলেন এবং তার বাবার নাম মো: সাহার আলী ।

মামলার এজাহারে বলা হয়- হাফেজ মো: সাইফুল ইসলাম একজন নারী লোভী ও চরিত্রহীন প্রকৃতির লোক। তিনি ধর্ষনের শিকার ওই ছাত্রীর দাদার বাড়িতে থেকে মোহাম্মদপুর পূর্ব পাড়া জামে মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়াতেন এবং সপ্তাহে ছয়দিন ভোর বেলা মসজিদের বারান্দায় গ্রামের ছোট শিশুদের কায়দা পড়াতেন।

২০১৮ সালের ১৮ই নভেম্বর ভোরে মক্তবে কায়দা পড়া শেষ করে বাড়ি ফিরেন আসেন ৭বছরের সেই ছাত্রী। সকাল ৮টার দিকে ইমাম হাফেজ মোঃ সাইফুল ইসলাম তার ঘর পরিষ্কার করার কথা বলে সেই ছাত্রীকে বাড়ি থেকে নিয়ে যান। পরে নিজের শয়নকক্ষে সেই শিশু ছাত্রীকে জোড়পূর্বক ধর্ষন করে ইমাম সাইফুল।
এই ঘটনায় ২০১৮ সালের ২২ নভেম্বর ইসলামপুর থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন সেই শিশু ছাত্রীর বাবা। মামলায় ১২ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহন করা হয়।

আসামী হাফেজ মোঃ সাইফুল ইসলামের ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির ভিত্তিতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ৯(১) ধারায় ধর্ষন অপরাধ প্রমানিত হওয়ায় আসামী সাইফুল ইসলামকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডাদেশ দেন আদালতের বিজ্ঞ বিচারক।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি ছিলেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর পিপি মো: আকরাম হোসেন এবং আসামীর পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন আইনজীবি মোঃ আব্দুল্লাহ।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *