সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১

বৃদ্ধ গনি হাওলাদারসহ তার বড় ছেলেকে ডেকে এনে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন ইউএনও মনিরা পারভীন

১ min read

নিউজ ডেস্ক : ইউএনও মনিরা পারভীনের হস্তক্ষেপে জমি লিখে নিয়ে রাস্তায় ফেলে যাওয়া আমতলীর সেই বৃদ্ধ বাবা আবদুল গনি হাওলাদারের ঠাঁই হল বড় ছেলে ইসমাইল হাওলাদারের ঘরে।

বৃদ্ধ গনি হাওলাদারসহ তার বড় ছেলেকে ডেকে এনে আর্থিক সহায়তা দিয়ে বাবাকে ভরণ-পোষণের দায়িত্ব দিয়ে দিলেন ইউএনও। এর ব্যত্যয় হলে ছেলেদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন ইউএনও মনিরা পারভীন।

এ সুযোগে দুই স্ত্রীর পাঁচ ছেলে ইসমাইল, শাহজাহান, নুরুল হক, জামাল ও হেলাল বাবাকে ভালোবাসার অভিনয় করে যখন যেভাবে পেরেছে জমিজমা লিখে নিয়েছে। সম্প্রতি মেজ ছেলে শাহজাহান হাওলাদার বাবাকে চিকিৎসা করানোর নাম করে তার আমতলী পৌরসভার বাসায় নিয়ে যায়।

ওই বাসায় নিয়ে তার সর্বশেষ জমিটুকু লিখে নেন। গত শনিবার সকালে শাহজাহান হাওলাদারের ছেলে সোহেল দাদাকে একটি গাড়িতে করে নিয়ে হলদিয়া ব্রিজ সংলগ্ন স্থানে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়।

ওইদিন দুপুরে পেটের ক্ষুধায় কাতরাতে দেখে স্থানীয় লোকজন তাকে একটি দোকান ঘরে বসিয়ে পাউরুটি খেতে দেয়। খবর পেয়ে আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাশার ও এসআই মহিউদ্দিন গিয়ে তাকে উদ্ধার করে ছোট স্ত্রীর ছেলে জামালের কাছে দিয়ে আসেন।

সোমবার আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন বৃদ্ধ বাবা আবদুল গনি হাওলাদার ও তার বড় ছেলে ইসমাইলকে ইউএনও অফিসে ডেকে নেন। পরে ইউএনও বৃদ্ধ বাবার ভরণ-পোষণের দায়িত্ব বড় ছেলে ইসমাইল হাওলাদারকে দিয়ে নিজ তহবিল থেকে তিন হাজার টাকা আর্থিক অনুদান এবং সরকারি ত্রাণ তহবিল থেকে এক মাসের ভরণ-পোষণ দিয়ে দেন এবং একই সঙ্গে বয়স্কভাতা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

আমতলীর ইউএনও মনিরা পারভীন বলেন, ওই বৃদ্ধা বাবাকে তার বড় ছেলে ইসমাইল হাওলাদারের দায়িত্বে দেয়া হয়েছে। এরপর ওই বৃদ্ধ বাবার ভরণ-পোষণে কোনো ব্যত্যয় হলে ছেলেদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *