বিজেপি সভাপতির পদ ছাড়ছেন না অমিত


জবাবদিহি ডেস্ক : নরেন্দ্র মোদি সরকারের মন্ত্রিসভায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সামলানোর দায়িত্ব পেয়েছেন। সরকারের অঘোষিত ‘দুই নম্বর’ পদে থাকার পরও বিজেপি সভাপতির পদে বহাল থাকছেন অমিত শাহ।

বহুদিন ধরে বিজেপিতে ‘এক ব্যক্তি, এক পদ’ নিয়ম চালু রয়েছে। অর্থাৎ একজন নেতা সরকার বা দলের একটি পদেই থাকতে পারবেন। সেই নিয়ম মেনে চললে সরকারের মন্ত্রী পদ পাওয়ার পর দলের সভাপতির পদটি অমিত শাহকে যত শীঘ্র সম্ভব ছেড়ে দেয়া উচিত।

কিন্তু বিজেপির শীর্ষ সূত্রের খবর, এখনই এই পদ ছেড়ে নতুন নির্বাচন করার কোনও লক্ষণ নেই দলে। মোদির বিগত সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জগৎপ্রকাশ নড্ডাকে যখন এবার মন্ত্রিসভায় শামিল করা হলো না, অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন তাকে দলের পরবর্তী সভাপতি করতে চলেছেন মোদি-শাহ। কিন্তু দলের অনেকেই এখন বলছেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাজে অসন্তুষ্ট বলেই প্রধানমন্ত্রী তাকে সরিয়েছেন।

পাঁচ বছর আগে লোকসভা নির্বাচনের আগে দলের সভাপতি ছিলেন রাজনাথ সিংহ। কিন্তু তিনি মন্ত্রী হওয়ার দুই মাসের মধ্যে অমিত শাহ তার উত্তরসূরি হয়েছিলেন। বিজেপি সূত্রগুলো জানিয়েছে, এবারও যদি এমনটা হতো তাহলে এখনই তার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে যেতো। কিন্তু হচ্ছে উল্টোটা।

অমিত শাহ কীভাবে দুটি পদই রাখতে পারেন, সেটির পথ খোঁজা হচ্ছে। হতে পারে নিজে সভাপতি পদে থেকে অন্য কাউকে কার্যনির্বাহী সভাপতি করবেন তিনি। বিজেপির একজন নেতা বলেন, এই মুহূর্তে যে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে মোদি-শাহ জুটি এসেছেন, তাতে তাদের মুখের ওপর কারও কিছু বলার নেই। অদূর ভবিষ্যতে সঙ্ঘ ও দলের ভেতর থেকে চাপ আসলে তখন পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেখা যাবে।

এদিকে নতুন সরকার আসার পর শাসক জুটি যে পথে এগোচ্ছে, তাতে প্রবীণ নেতারা যে একে একে গুরুত্ব হারাচ্ছেন, তা কারও নজর এড়াচ্ছে না। সুষমা স্বরাজ মন্ত্রিসভায় জায়গা পেলেন না। অরুণ জেটলি আগেই শারীরিক কারণে সরে দাঁড়িয়েছেন। রাজনাথকে খাতায় কলমে ‘দুই নম্বর’ রেখে দিলেও অমিতেরই ওজন বাড়ছে। এমনকি কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার যেসব কমিটি তৈরি হয়েছে, তাতে নিরাপত্তা বিষয়ক কমিটি ছাড়া আর একটিতেও রাখা হয়নি রাজনাথকে।

0 30

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আজকের সংবাদ শিরোনাম :
%d bloggers like this: