জুলাই ২৮, ২০২১

বাংলাদেশের সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক কখনোই চাই না -দোরাইস্বামী

১ min read

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেছেন, অনেক সময় বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে কিছু বিষয় নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি হয়, তবে দুই দেশের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে। গতকাল সোমবার ডিপ্লোমেটিক করেসপনডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ আয়োজিত ‘ডিক্যাব টকে’ অংশ নিয়ে বাংলাদেশে দায়িত্ব পালনরত ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক আমরা কখনোই চাই না। তিনি বলেন, আমরা কেন চাইব? একই সঙ্গে বাংলাদেশ অসফল হোক- এটিও আমরা চাই না।’

তিনি বলেন, বন্ধুত্ব সবসময় পারস্পরিক আস্থা ও শ্রদ্ধাবোধের ভিত্তিতে গড়ে ওঠে। কখনো কখনো আমি ও আমার সহকর্মীরা আমাদের সম্পর্ক নিয়ে অবিশ্বাস লক্ষ করি। শক্তিশালী, স্থিতিশীল, সমৃদ্ধশালী ও বিকশিত বাংলাদেশ আমাদের মৌলিক জাতীয় স্বার্থের জন্য অপরিহার্য। আপনাদের সাফল্য আমাদের জন্য সবচেয়ে মঙ্গলের। এ নিয়ে কারো কোনো সন্দেহ থাকা উচিত নয়। ডিকাবের আয়োজনে এ অনুষ্ঠানে সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট পান্থ রহমান ও সাধারণ সম্পাদক একেএম মঈনুদ্দিনও বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশের সাংবাদিকদের উদ্দেশে ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, দুই দেশের মধ্যে অবিশ্বাস আছে, কিন্তু এর থেকে বের হয়ে এসে দুই দেশ একে-অপরকে সহযোগিতা করলে উভয়েরই উপকার হবে। বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের ভালো সম্পর্কে ভারতের কিছু এসে-যায় না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘অন্য দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক নিয়ে অনুমান করা আমার কাজ না। আমার কাজ হচ্ছে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক কী হবে এবং এজন্য আমি এখানে আছি।’

বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে অন্য কোনো উদ্বেগের স্থান নেই এবং দুই দেশকে বড় আকারে উদ্যোগ নিতে হবে বলে তিনি জনান। ভারতের মৌলিক স্বার্থের একটি হচ্ছে শক্তিশালী, স্থিতিশীল ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক ভারতের পররাষ্ট্রনীতির একটি বড় পিলার বলে জানান তিনি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন ঢাকা সফরের অগ্রাধিকার কোন কোন বিষয়ে থাকবে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুই নিকট প্রতিবেশীর বন্ধুত্ব সুসংহত করে আগামী ৫০ বছরে এগিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে দিকনির্দেশনার ওপর এ জোর দেয়া হবে।

তিস্তা চুক্তি সহসা হচ্ছে না ঈঙ্গিত করে দোরাইস্বামী বলেন, যেকোনো ধরনের আন্তঃনদী চুক্তির ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের অনুমোদন প্রয়োজন হয় এবং ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এর সঙ্গে জড়িত সবার সঙ্গে আলোচনা করছে। বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর জন্য কোভিড টিকা উপহার দেয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা এটির জন্য প্রস্তাব করেছি এবং বাংলাদেশের সম্মতির জন্য অপেক্ষা করছি। বাংলাদেশ এ টিকা নিলে আমরা খুশি হব। ভিসা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য এখনো পর্যটন ভিসা শুরু হয়নি। কিন্তু এরপরও প্রতিদিন ১৬০০ ভিসা ইস্যু করছেন বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *