সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১

দোষীদের কোনও ছাড় নয়, তবে নিরপরাধকে হয়রানি নয়: সাঈদ খোকন

১ min read

নিউজ ডেস্ক: দোষীদের কোনও ছাড় নয়, তবে নিরপরাধ কোনও কাউন্সিলর যেন হয়রানির শিকার না হন, সেজন্য সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

রবিবার (২০ অক্টোবর) সকালে বিশ্ব হাত দোয়া দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র সাঈদ খোকন এসব কথা বলেন। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন (এলআইইউপিসি) প্রকল্প এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

তিনি বলেন, ‘যে অন্যায় করে তার শাস্তি হবে। আমরা তাকে শাস্তি দেওয়ার জন্য সর্বাত্মক সহযোগিতা করবো। যদি কারও বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ উত্থাপিত হয়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে। আমাদের যদি কোনও সাহায্য-সহযোগিতা কামনা করে, অবশ্যই ডিএসসিসি সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করবে। সঙ্গে সঙ্গে নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে আমি অবশ্যই বলবো—নিরপরাধ বা যিনি এসব কাজের সঙ্গে জড়িত নন, এমন কাউন্সিলরের ব্যাপারে যেন যাচাই-বাছাই করে পদক্ষেপ নেওয়া হয়।’

মেয়র বলেন, ‘যারা জনগণের কাজ ও সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন, তাদের যদি কোনও উদ্দেশ্যমূলকভাবে হেনস্তা করতে অপব্যাখ্যা দেওয়া হয়, তাহলে আমি বলবো, আমরা সবাই যেন সতর্কতার সঙ্গে ব্যবস্থা নিই। কারণ, এর সঙ্গে জনসম্পৃক্ততা ও জনসেবা জড়িয়ে আছে। একজন কাউন্সিলর যদি বিনা করণে হয়রানির শিকার হন, তাহলে এলাকাবাসী তার সেবা থেকে বঞ্চিত হবে। দোষীকে কোনোভাবে ছাড় নয়, যিনি নিরপরাধ তাকে কোনোভাবেই হয়রানি নয়, আমরা এই নীতিতে সামনে চলবো।’

একজন কাউন্সিলরকে বরখাস্ত করা হয়েছে, তার স্থানে কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কিনা, গণমাধ্যমকর্মীদের এ প্রশ্নে মেয়র বলেন, ‘আমাদের কাছে মন্ত্রণালয়ের চিঠি আসার পরপরই আইন অনুযায়ী তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় যে কাউন্সিলর থাকেন, তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। চিঠি এলেই ওই ওয়ার্ডের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পাশের ওয়ার্ডের একজন কাউন্সিলরকে নিয়োগ দেওয়া হবে।’

মেয়র আরও বলেন, ‘আমাদের শতাধিক কাউন্সিলর রয়েছেন। এর মধ্যে একজন এ কাজে (ক্যাসিনো) জড়িয়েছেন। এতে জড়িত থাকার বিষয়ে দুই-চার জনের নাম পত্রপত্রিকার মাধ্যমে জানতে পেরেছি। সেটাকে যাচাই-বাছাই করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যবস্থা নেবে। পত্র-পত্রিকায় কিছু লিখে দিলেই সিটি করপোরেশন সেটা গ্রহণ করতে পারে না। কিংবা কোনও কাউন্সিলরকে আমরা অভিযুক্ত করতে পারি না, যতক্ষণ পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ না করছে। নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে আমি অবশ্যই বলবো আইন তার নিজস্ব গতিতেই চলবে।’

ডেঙ্গু প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, ‘আমাদের কার্যক্রমে কিছুটা গতি কমেছে, এটা সত্য। তবে আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। এরই মধ্য পাঁচ বছর মেয়াদি কর্মপরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সেজন্য একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *