আগস্ট ৩, ২০২১

জিয়ার খেতাবে হাত দিলে পুড়ে ছাই হবে -গয়েশ্বর

১ min read

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন জিয়াউর রহমানের খেতাবে হাত দিলে সেই হাত ‘পুড়ে ছাই হয়ে যাবে’ ।বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর একথা বলেন।

সোমবার এক সমাবেশে তিনি বলেন, “আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, জিয়াউর রহমানের খেতাবে হাত দিলে সেই হাতে ফোসকা ফুটবে, আগুনে পুঁড়ার মতো ছাই হয়ে যাবে।এরা যে কত বড় একটা মহা কলঙ্কের তিলক নিজেদের কপালে আঁকার চেষ্টা করছে, এখনও বুঝছে না। কবি-সাহিত্যিক-গীতিকাররা সব পক্ষ যে গানের লাইনটি বলেন, মানি না, মানি না, কলঙ্ক আমার ভালো লাগে অর্থাৎ কিছু কিছু লোকের কলঙ্কের তিলক পরতে ভালো লাগে, সেই জাতের মধ্যে শেখ হাসিনা।”

আওয়ামী লীগ সরকারকে প্রতিবেশী দেশের ‘তল্পিবাহক সরকার’ আখ্যায়িত করে গয়েশ্বর বলেন, “গণতান্ত্রিক সরকারের সংজ্ঞা হল, বাই দা পিপল, ফর দা পিপল, অব দা পিপল। আমি বছর ৭-৮ আগে বলেছিলাম যে, দিজ গভর্নমেন্ট ইজ নট বাই দা পিপল, নট ফর দা পিপল, নট বাই দা পিপল। দিজ গভর্নমেন্ট বাই দা ইন্ডিয়া, ফর দা ইন্ডিয়া, অব দা ইন্ডিয়া।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, “আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে, কর্মসূচির কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। আমাদেরকে জায়গা দেবেন না। এই বিস্তৃত বাংলাদেশে একাত্তরের ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানিরা জায়গা দেয়নি। মুক্তিযোদ্ধারা লুঙ্গি পরে স্টেনগান নিয়ে ধান খেত, গম খেত, খালে-বিলে থেকে ওদেরকে প্রতিহত করেছে।

রিজভী বলেন, “এই যে কম্পিটিশন লেগে গেছে আ ক ম মোজাম্মেলন হক, শাহজাহান খান। তখন নৌ প্রতিমন্ত্রী গতকাল বলে বসলেন, জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের লোকই ছিলেন না। আমি বললাম যে, এতগুলো খেকশিয়াল, পাতি শিয়ালৃএর মধ্যে আমি আরেকটা পেলাম বাকশিয়াল। এই বাকশিয়াল হচ্ছে এই সমস্ত নৌ প্রতিমন্ত্রী-টন্ত্রী, কতগুলো চামচা-টামচা আছে তারা।”

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় ঢাকা জেলা কমিটির উদ্যোগে জিয়াউর রহমানরে ‘বীরউত্তম’ খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এই বিক্ষোভ সমাবেশ হয়।বিএনপির ঢাকা জেলার সভাপতি দেওয়ান মো. সালাহউদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাকের পরিচালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, নিপুণ রায় চৌধুরী, তমিজউদ্দিন আহমেদ, মহিলা দলের সুলতানা আহমেদ, যুব দলের গোলাম মাওলা শাহিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *