আগস্ট ৫, ২০২১

কোস্টগার্ড হবে স্বতন্ত্র বাহিনী, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

১ min read
কোস্টগার্ড হবে স্বতন্ত্র বাহিনী, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কোস্টগার্ড হবে স্বতন্ত্র বাহিনী, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, কোস্টগার্ডকে সত্যিকার ‘গার্ডিয়ান অব সি’ হিসাবে গড়ে তুলতে সব ধরণের স্বক্ষমতা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। এজন্য পর্যায়ক্রমে আরও অস্ত্র ভ্যাসেল ও এয়ার উইং সংযোজন করা হবে। পাশাপাশি ভবিষ্যতে নিজস্ব জনবল নিয়োগের মাধ্যমে কোস্টগার্ডকে স্বতন্ত্র বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনার রয়েছে।

গতকাল রোববার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে কোস্টগার্ড সদরদপ্তরে বাহিনীর ২৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক রিয়াল এডমিরাল এম আশরাফুল হকসহ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। গতবছর বীরত্ব ও সাহসিকতাপূর্ণ কাজের জন্য কোস্ট গার্ড পদক, প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড পদক, কোস্ট গার্ড (সেবা) পদক ও প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড (সেবা) পদকপ্রাপ্ত ৪০ জনকে পদক পড়িয়ে দেন মন্ত্রী।

অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে কোস্টগার্ডে চার হাজার সদস্য দায়িত্বপালন করছেন। কোস্টগার্ডে নিজস্ব জনবল নিয়োগের পরিকল্পনা রয়েছে। এটি শুরু হলে কোস্টগার্ডের নিজস্ব সদস্য থাকবে, যারা স্থায়ীভাবে বাহিনীতে থেকে সেবা দিয়ে যেতে পারবেন। পাশাপাশি পটুয়াখালীতে একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্রসহ বাহিনীটিকে আধুনিক ও যুগোপযোগী করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। কোস্টগার্ডে ইতিমধ্যে চারটি অস্ত্র ভ্যাসেল সংযুক্ত করা হয়েছে। আরো চারটি ভ্যাসেল যুক্ত করা হবে। একইসঙ্গে খুব শিগগিরই যুক্ত হবে অত্যাধুনিক অফশোর প্যাট্রল ভেসেল (ওপিভি), হোভারক্রাফ্ট ও অন্যান্য উচ্চ প্রযুক্তি সম্পন্ন জলযান। প্রয়োজনে সব ধরনের লজিস্টিক সাপোর্ট দিয়ে আধুনিকায়ন করা হবে।

মাদক চোরাচালান রোধ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মাদক চোরাচালান রোধে আমরা মোটেও ব্যর্থ না। সীমান্তের দুর্গম এলাকায় বিজিবির টহল নিশ্চিতে সীমান্ত সড়ক তৈরী করা হচ্ছে। বিজিরি নজরদারি বাড়াতে হেলিকপ্টার যুক্ত করা হয়েছে। কোস্টগার্ডও উপক‚লীয় এলাকায় তাদের অবস্থান নিশ্চিত করছে। ফলে অদূর ভবিষ্যতে মাদক নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড দুই যুগেরও অধিক সময় ধরে সমুদ্র বানিজ্য ও উপক‚লীয় জনগনের নিরাপত্তা বিধানে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই এ বাহিনীকে আরো শক্তিশালী করার লক্ষ্যে সরকার বদ্ধপরিকর।

অনুষ্ঠানে কোস্ট গার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার এডমিরাল এম আশরাফুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পৃষ্ঠপোষকতা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সুযোগ্য ও যুগপোযোগী দিক নির্দেশনার ফলে এ বাহিনীর আধুনিকায়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের সদস্যগণ দেশ প্রেমের চেতনা সমুন্নত রেখে তাদের অটুট মনবল, নিরলস কর্মস্পৃহা ও কঠোর প্ররিশ্রমের মাধ্যমে সরকার কর্তৃক ঘোষিত রুপকল্প ২০৩০ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে সর্বদা সচেষ্ট থাকবে।

১৯৯৪ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় জাতীয় সংসদে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বিল উত্থাপন করে। যার প্রেক্ষিতে এ বাহিনীর যাত্রা শুরু হয়। শুরুতে বাংলাদেশ নৌবাহিনী থেকে ২টি জাহাজ ও ২টি বোট এবং প্রেষণে আগত ৪৩৫ জন নৌ সদস্য নিয়ে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড তার পথ চলা শুরু করে। পরবর্তীতে কালের পরিক্রমায় প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় এ বাহিনীতে নতুন নতুন প্লাটফর্ম ও অবকাঠামো সংযোজিত হয়েছে। এর ফলে বাহিনীর অপারেশনাল কর্মকান্ডে ব্যাপক গতি সঞ্চার হয়েছে এবং অর্জিত হয়েছে নানা সাফল্য। কোস্ট গার্ডের নিরলস প্রচেষ্টায় চট্টগ্রাম বন্দর ঝুঁকিপূর্ন বন্দরের তালিকা থেকে মুক্ত হয়ে একটি নিরাপদ বন্দরে পরিনত হয়েছে।
মুজিববর্ষ উদযাপনের লক্ষ্যে কোস্ট গার্ড কর্তৃক ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে চর ও দ্বীপাঞ্চলের স্থানীয় জনগণের মাঝে বিশুদ্ধ/সুপেয় পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করা, উপক‚লীয় জেলেদের জন্য লাইফ জ্যাকেট ও রেইনকোট বিতরণ, প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত গরীব ও দুস্থদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান ইত্যাদি। এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহবানে বিশ্বব্যাপী চলমান কোভিড-১৯ মহামারির দুঃসহ দিনগুলোয় উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় তিন কোটি মানুষের মাঝে সাহস আর ভরসা জুগিয়ে এসেছে কোস্ট গার্ড সদস্যরা। এছাড়াও করোনাকালীন ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন ব্যবস্থাপনা ও জননিরাপত্তার দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি খাদ্যসামগ্রী নিয়ে অসহায়, দুঃস্থ, কর্মহীন এবং শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে কোস্ট গার্ড। সামনের দিনগুলোতে দেশের জন্য নিবেদিত প্রাণে সততা, পেশাদারিত্ব এবং দেশপ্রেমের চেতনাকে বুকে ধারণ করে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যেতে বদ্ধ পরিকর কোস্ট গার্ড। সর্বোপরি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে জাতির প্রত্যাশা পূরণে নিরলস কাজ করে যাবে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *