Wed. Apr 1st, 2020

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌপথে মানুষের উপচে পড়া ভিড়

1 min read
কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌপথে মানুষের উপচে পড়া ভিড়

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌপথে মানুষের উপচে পড়া ভিড়

কে এম, রাশেদ কামাল, মাদারীপুর প্রতিনিধি : করোনাভাইরাস প্রতিরোধের জন্য বিআইডব্লিটিএ নৌপথে যাত্রী পরিবহন বন্ধ ঘোষণা করলেও মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া নৌপথে দক্ষিণবঙ্গমুখী যাত্রীদের স্রোত নেমেছে। নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও স্পিডবোটে যাত্রীদের পারাপার করা হচ্ছে। এমনকি যাত্রীদের চাপ বেড়ে যাওয়ায় কেউ কেউ ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে পাড় হচ্ছেন।

কাঁঠালবাড়ি ঘাট কর্তৃপক্ষ জানায়, বুধবার সকাল থেকেই মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। করোনাভাইরাস প্রতিরোধের জন্য মঙ্গলবার বিকেল থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। তবে স্পিডবোট চলাচল বন্ধ থাকলেও শিমুলিয়া থেকে সীমিত কয়েকটি স্পিডবোট যাত্রীদের পরাপার করছে। অনেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে পাড়ি দিচ্ছেন পদ্মানদী। তবে সিংহভাগ যাত্রীরা ফেরিতে পাড় হচ্ছেন।

বিআইডবিøউটিসি কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আব্দুল আলিম বলেন, এখানে আমাদের কি করার? উপর থেকে নিদের্শনা আছে বলেই ফেরি এখনো চলাচল করছে। ঘাটের দুই পাড়েই র‌্যাব, পুলিশ সেনাবাহিনী আছে। তারা তো কিছু বলছে না।’

জানতে চাইলে কাঁঠালবাড়ি ঘাটের ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) নাসিরউদ্দিন সরকার বলেন, ‘যাত্রীবাহী বাস দুই-চারটি চলাচল করলেও তা সীমিত আকারে। যাত্রীরা মাইক্রোবাসা, ইজিবাইক, নসিমুন-করিমুন ও ভিআইপি ভ্যান ও মোটরসাইকেলে করে গন্তব্যে যাচ্ছে।

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌপথ দিয়ে স্বাভাবিক সময়ে প্রতিদিন ৩০ হাজার মানুষ যাতায়াত করে। এই নৌপথে বর্তমানে ১৫টি ফেরি, ৮৭ লঞ্চ ও দেড় শতাধিক স্পিডবোট চলাচল করছে। এর আগে মঙ্গলবার রাতে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাট থেকে শরিয়তপুরের মাঝিকান্দিতে ছেড়ে আসা যাত্রী বোঝাই একটি ট্রলার পদ্মানদীর জাজিরা পয়েন্টে ডুবে যায়। এ সময় বেশ কয়েকজন নিখোঁজের ঘটনা ঘটে। জীবিত উদ্ধারও হয় অনেকে। এদিকে অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই করা এই দুর্ঘটনা ঘটতে পারে ধারণা স্থানীয়দের।