সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১

এসআই টুটুল আইয়ুব বাচ্চুর কবর জিয়ারত করতে গেলে এ সময় তার চোখ ছিল ভেজা

১ min read

নিউজ ডেস্ক : সকালে চট্টগ্রাম শহরের চৈতন্যগলি কবরস্থানে আইয়ুব বাচ্চুর কবর জিয়ারত করতে যান আরেক সংগীত তারকা এসআই টুটুল। এ সময় তার চোখ ছিল ভেজা।

এসআই টুটুল বলেন, কবর জিয়ারত করেছি। কিছু সময় চুপ করে দাঁড়িয়ে থেকেছি। বসের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছি। আপনারা এসআই টুটুল হিসেবে যাকে দেখছেন, তা আমার এই বসের অবদান। বস ছাড়া আমি শূন্য।

চট্টগ্রামে নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘লাভেলো-কি আনন্দ উৎসব’। এসআই টুটুল জানান, অনুষ্ঠানে তিনি গান গাইবেন। নতুন প্রজন্মের কাছে সামনে আইয়ুব বাচ্চুকে তুলে ধরবেন। তার গান শোনাবেন। তার কথা তুলে ধরবেন।

এ ছাড়া সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের জামালখানে আইয়ুব বাচ্চুকে স্মরণ করে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আইয়ুব বাচ্চু ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) চট্টগ্রাম জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালে তিনি সোলস ব্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত ‘রক্তগোলাপ’ আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম। এই অ্যালবামটি তার জীবনে সফলতা বয়ে না আনলেও ১৯৮৮ সালে তার দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ময়না’ তার জীবনে সফলতার দ্বার উন্মোচন করে।

পরবর্তী সময়ে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে তার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম ‘সুখ’ ও ‘তবুও’ বের হয়।

১৯৯৫ সালে তিনি বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম ‘কষ্ট’। সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামের একটি বলে অভিহিত করা হয় এটিকে।

‘অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে’ তার বাংলা ছবির অন্যতম একটি জনপ্রিয় গান। এটি তার গাওয়া প্রথম চলচ্চিত্রের গান।

ছয় বছর পর ২০১৫ সালে তার পরবর্তী একক অ্যালবাম জীবনের গল্প বাজারে আসে।

গিটারে তিনি সারা ভারতীয় উপমহাদেশে বিখ্যাত। জিমি হেন্ড্রিক্স ও জো স্যাট্রিয়ানীর বাজনায় তিনি দারুণভাবে অনুপ্রাণিত। ঢাকার মগবাজারে ‘এবি কিচেন’ নামে তার নিজস্ব একটি মিউজিক স্টুডিও রয়েছে।

আইয়ুব বাচ্চুর জনপ্রিয় গান ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো’। বাংলাদেশের ব্যান্ড সংগীতে যে কয়েকটি গান তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে, তার মধ্যে এই গানটি অন্যতম। লিখেছেন জনপ্রিয় গীতিকবি লতিফুল ইসলাম শিবলী।

এ ছাড়া ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’ ‘সেই তুমি’, ‘সে তারা ভরা রাতে’, ‘সুখের পৃথিবী’, ‘হাসতে দেখো গাইতে দেখো’, ‘আমি বারো মাস তোমার আশাই আছি’, ‘মেয়ে’, ‘আম্মাজান’।

২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর তিনি কোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে চলে যান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *