এবার যুক্তরাষ্ট্রের পণ্যে ভারতের শুল্ক আরোপ


জবাবদিহি ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের কাজুবাদাম, আখরোট ও আপেলসহ ২৯টি পণ্যের ওপর এবার উচ্চহারে শুল্ক আরোপ করবে ভারত।

শুক্রবার একাধিক সূত্রের বরাত দিয়ে এই তথ্য নিশ্চিত করেছে যুক্তরাজ্যের সংবাদ সংস্থা রয়টার্স এবং ভারতের গণমাধ্যম এনডিটিভি।

এক্ষেত্রে প্রায় এক বছর সময় নিয়ে ভারত এই পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের সংবাদ সংস্থাটি।

ভারতের সংবাদ সংস্থা পেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়ার বরাত দিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমটি জানায়, আগামী ১৬ জুন থেকে সিদ্ধান্তটি কার্যকর হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতকে দেয়া জেনারালাইজড সিস্টেম অব প্রেফারেন্সেস (জিএসপি) বাতিল করার পর বিষয়টি সামনে এলো।

গত ৩১ মে এক ঘোষণায় ট্রাম্প বলেন, আমরা যেমন বাণিজ্যিক সুবিধা ভারতকে দিয়েছি, দেশটির পক্ষ থেকে তেমন গ্রহণযোগ্য কিছু দেয়ার আশ্বাস পাইনি।

তাই ৫ জুন থেকে একটি সুবিধাপ্রাপ্ত উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে ভারতকে দেয়া স্বীকৃতি ও সুযোগ কার্যকর থাকবে না বলে উল্লেখ করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট।

জিএসপি যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক অগ্রাধিকারমূলক কর্মসূচি। এর অধীনে সুবিধাপ্রাপ্ত দেশগুলোর কয়েকশ পণ্য বিনা শুল্কে দেশটির বাজারে ঢুকতে পারে।

জিএসপির অধীনে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পেতো ভারত। এর অধীনে ভারত ২০১৭ সালে ৫.৭ বিলিয়ন ডলারের পণ্য বিনা শুল্কে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠায়।

এখন ভারত যুক্তরাষ্ট্রের পণ্যের ওপর উচ্চহারে শুল্ক আরোপ করে ভারসাম্য বজায় রাখতে চায় বলে বিষয়টির সঙ্গে সরাসরি জড়িত দুটি সূত্র সংবাদ সংস্থাটিকে জানিয়েছে।

অবশ্য যুক্তরাষ্ট্র সতর্ক করে জানিয়েছে, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নিয়মের অধীনে ভারতের প্রতিশোধমূলকভাবে আরোপ করা শুল্ক কোনোভাবেই ‘যথাযথ’ হবে না।

বিষয়টি সংবেদনশীল হওয়ায় নাম না প্রকাশের শর্তে একটি সূত্র জানায়, ভারত যেটি করতে যাচ্ছে, সেটি বৈধ। তাছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের শুধু ২২০ মিলিয়ন ডলারের পণ্যে এর প্রভাব পড়বে।

ভারতের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাছে এই বিষয়ে জানতে চেয়ে একটি ইমেইল করা হয় রয়টার্সের পক্ষ থেকে। কিন্তু মন্ত্রণালয়টির পক্ষ থেকে কোনও জবাব দেয়া হয়নি।

ভারত গত বছরের জুনে ভারত যুক্তরাষ্ট্রের বেশকিছু পণ্যের ওপর ১২০ শতাংশ পর্যন্ত আমদানি কর বাড়ানো সংক্রান্ত একটি আদেশ প্রাথমিকভাবে জারি করে।

ভারত থেকে স্টিল ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ক্ষেত্রে আরোপ করা শুল্ক থেকে যুক্তরাষ্ট্র দেশটিকে অব্যাহতি না দেয়ায় এই পদক্ষেপ গ্রহণ করে নয়াদিল্লি।

কিন্তু দুই দেশের মধ্যে আলোচনা চলায় যুক্তরাষ্ট্রের পণ্যের ওপর শুল্ক বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বারবার দেরি করেছে ভারত।

যুক্তরাষ্ট্রের কাজুবাদামের সবচেয় বড় ক্রেতা ভারত। ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের রপ্তানি করা মোট কাজুবাদামের অর্ধেকের বেশি ক্রয় করে ভারত।

যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, গত বছর দেশটি থেকে ৫৪৩ বিলিয়ন ডলার মূল্যের কাজুবাদাম ক্রয় করে ভারত।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের আপেলের দ্বিতীয় বৃহৎ ক্রেতা ভারত। গত বছর যুক্তরাষ্ট্র থেকে ১৫৬ মিলিয়ন ডলার মূল্যের আপেল ক্রয় করে দেশটি।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও চলতি মাসে ভারত সফর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। তিনি জানিয়েছেন, ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যিক আলোচনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের দরজা সবসময় খোলা।

0 30

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
আজকের সংবাদ শিরোনাম :
%d bloggers like this: