সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১

অস্ত্রবিরতিতে সম্মতি হওয়ার পরও উত্তর সিরিয়ার গোলাবর্ষণ

১ min read

Syrian government forces walk past media crew vehicles at a position on the outskirts of the northern city of Manbij in the north of Aleppo province, as government forces deploy there on October 15, 2019. (Photo by - / AFP)

নিউজ ডেস্ক : চার ঘণ্টারও বেশি সময়ের বৈঠকে একটি অস্ত্রবিরতিতে সম্মতি হওয়ার পরও উত্তর সিরিয়ার রাস আল-আইন থেকে গোলাবর্ষণ ও বন্দুকযুদ্ধের মুহুর্মুহু ধ্বনি শোনা গেছে।কুর্দিশ বাহিনী ওই অঞ্চলটি থেকে প্রত্যাহারের শর্তে চুক্তিতে রাজি হয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।
এরদোগানের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনার পর অস্ত্রবিরতির কথা ঘোষণা করেন মাইক পেন্স। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই চুক্তির তারিফ করে বলেন, এতে লাখ লাখ মানুষের জীবনের সুরক্ষা নিশ্চিত হয়েছে।
ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।যুদ্ধ পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস বলছে, অভিযান শুরু হওয়ার পর তিন লাখ বেসামরিক লোক বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। ২০১১ সালে সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর এটিই সবচেয়ে বড় ঝাঁকুনি।হামলা শুরু হওয়ার পর আন্তর্জাতিকভাবে ব্যাপক নিন্দার মুখে পড়ে তুরস্ক। ইউরোপীয় দেশগুলো আংকারার বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসগলু বলেন, তুরস্ক হামলা স্থগিত করেছে। বন্ধ করেনি। এটি কোনো অস্ত্রবিরতি নয়। কেবল বৈধ দুটি পক্ষের মধ্যেই অস্ত্রবিরতি চুক্তি হয়ে থাকে।পেন্সের সঙ্গে চার ঘণ্টার বেশি সময় ধরে চলা বৈঠকের পর সই হওয়া এ চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি এটিকে সভ্যতার একটি মহান দিন হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *