রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠায় আহ্বান পুতিনের


জবাবদিহি ডেস্ক : রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। মঙ্গলবার (১৪ মে) সোচিতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও’র সঙ্গে বৈঠকে এ আহ্বান জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও দুই দেশের সম্পর্কোন্নয়ের বিষয়ে আগ্রহী বলে জানতে পেরেছেন তিনি। অন্যদিকে পম্পেও বলেন, সময় এসেছে দুইদেশের সম্পর্ক নতুন করে শুরু করে পারস্পরিক আস্থা ও সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করার।

ইরান, সিরিয়া, ইউক্রেন এবং ভেনেজুয়েলা ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে একটি অভিন্ন কৌশল খুঁজে বের করার লক্ষ্যে মঙ্গলবার, সোচি শহরে পৌঁছান মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। সেখানে তাকে অভ্যর্থনা জানান রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। পরে, দু’দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় বসেন দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এসময়, ইরান, ভেনেজুয়েলা, সিরিয়া, ইউক্রেনসহ নানা ইস্যুতে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা হলেও, এতে প্রাধান্য পায় যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া সম্পর্কোন্নয়নের বিষয়টি। দু’দেশের মধ্যে যোগাযোগ এবং পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়েও একমত হন দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বৈঠক শেষে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেখা করেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে। এসময়, দ্বিপক্ষীয় নানা ইস্যু নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি দুই নেতা গুরুত্বারোপ করেন দুইদেশের সম্পর্কোন্নয়নের ওপর। বৈঠকে, রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে পুতিন বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও দুইদেশের সম্পর্কোন্নয়ে আগ্রহী। আর এ লক্ষ্যে এখন থেকে পারস্পরিক আস্থা আর সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করে যাওয়ারও অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেন, কিছুদিন আগে আমার মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে টেলিফোনে কথা হয়েছে। আমার মনে হয়েছে তিনি যেকোন মূল্যে দুইদেশের সম্পর্কোন্নয়নের বিষয়ে যথেষ্ট আগ্রহী। এটা সত্য, পরিস্থিতি এরইমধ্যে বদলাতে শুরু করেছে। আমি আশা করবো, দুইদেশের সম্পর্ক নতুন করে শুরু করার মধ্য দিয়ে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা, সংকট সমাধান এবং বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাস দমনে একটি অভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে পারস্পরিক আস্থা ও সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করবে দুই দেশ।

অন্যদিকে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বৈশ্বিক নানা সংকট সমাধানে এই মুহূর্তে একটি অভিন্ন কৌশল খুঁজে বের করাটা দুই দেশের জন্যই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও এ বিষয়টির ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, উত্তর কোরিয়া, আফগানিস্তান ইস্যুতে আমাদের নীতিগত অবস্থান এক হওয়ায় এসব ক্ষেত্রে আমরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছি। আমি আশা করবো, ঠিক একইভাবে, অন্যান্য ক্ষেত্রেও পারস্পরিক যোগাযোগ ও আলোচনার মাধ্যমে ভবিষ্যতে আমরা এক হয়ে কাজ করতে সক্ষম হবো। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও এই বার্তা দিতেই আমাকে এখানে পাঠিয়েছেন।

তবে, দুই দেশ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কোন্নয়নের ওপর জোর দিলেও, আগামী বছর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া কোন ধরনের হস্তক্ষেপের চেষ্টা করলে, তা মেনে নেয়া হবে না বলেও জানিয়ে দেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের বিষয়ে স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুলারের তদন্ত রিপোর্টে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে সব ধরনের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়ায় এ বিষয়ে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার নিরসন হয়েছে বলে মন্তব্য করেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
আজকের সংবাদ শিরোনাম :
%d bloggers like this: