বিশ্বকাপ খেলবেন স্টেইন-রাবাদা!


স্পোর্টস ডেস্ক : ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ শুরুর আগে একের পর ইনজুরির ধাক্কায় নাজেহাল অবস্থা দক্ষিণ আফ্রিকার। ইনজুরির ঝড়টা গেছে মূলত দলটার পেস বোলিং ডিপার্টমেন্টের ওপর দিয়ে। প্রথমে শুরু হয় প্রোটিয়া দলের সবচেয়ে দ্রুতগতির পেসারদের একজন এনরিক নরয়েকে দিয়ে। চোটের কারণে বিশ্বকাপ থেকেই ছিটকে যান এই পেসার। এরপর আসে আরো বড় দুটো দুঃসংবাদ। আইপিএল খেলতে গিয়ে ইনজুরিতে পড়েন অভিজ্ঞ ডেল স্টেইন এবং এ মুহূর্তে দক্ষিণ আফ্রিকার সেরা পেসার কাগিসো রাবাদা। আর আগে থেকেই চোটের সঙ্গে লড়ছিলেন দলের আরেক পেসার লুঙ্গি এনগিডি। তবে এমন দুর্দশাগ্রস্ত অবস্থার মধ্যে প্রোটিয়া ভক্তদের কিছুটা আশার বাণী শুনিয়েছেন দলের কোচ ওটিস গিবসন। দলের দুই সেরা বোলারের বিশ্বকাপে খেলার ব্যাপারে পূর্ণ আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন গিবসন।

এবারের আইপিএলে দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে বল হাতে দুরন্ত ফর্মে ছিলেন কাগিসো রাবাদা। দিল্লির হয়ে প্লে-অফ রাউন্ডে না খেলা রাবাদা ১২ ম্যাচে ২৫ উইকেট নিয়ে একসময় পর্যন্ত এবারের টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি ছিলেন। তবে পিঠের ইনজুরির কারণে আইপিএল ফেলে রেখেই দেশের বিমান ধরেন ডানহাতি এই ফাস্ট বোলার। অন্যদিকে, রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর হয়ে মাত্র দুটি ম্যাচে মাঠে নামার পরই কাঁধের ইনজুরির কারণে দেশে ফিরতে হয় ডেল স্টেইনকে। বিশ্বকাপের আগে আর অল্প কিছুদিন বাকি থাকায় দুজনেরই খেলা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকার কোচ দলের সেরা দুই পেসারের বিশ্বকাপে খেলার ব্যাপারে অত্যন্ত আশাবাদী। সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলে কোচ ওটিস গিবসন বলেন, ‘আমাদের মনে হচ্ছে, ইনজুরি থেকে সেরে ওঠার ক্ষেত্রে সঠিক পথেই আছে ডেল ও রাবাদা। তাই সমর্থকদের ভয়ের কিছু নেই। বিশ্বকাপের আগেই ওরা দুজন সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠবে বলে আশা করি এবং বিশ্বকাপেও খেলবে।’

দক্ষিণ আফ্রিকা দলের আরেক দুশ্চিন্তার নাম অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান হাশিম আমলার ফর্মখরা। ওয়ানডে ক্রিকেটে গত দুই বছরে মাত্র দুটি সেঞ্চুরি এবং চারটি অর্ধশতক এসেছে ডানহাতি আমলার ব্যাট থেকে। তবে অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানের অফফর্ম নিয়ে মোটেই চিন্তিত নন গিবসন। ইংল্যান্ডের মাটিতে আমলার ওয়ানডে রেকর্ডও দারুণ, ব্যাট হাতে ৫৬.৭৩ গড়ে রান করেছেন সেখানে। ফর্মহীনতায় ভুগতে থাকা এই প্রোটিয়া ওপেনার সম্প্রতি ঘরোয়া একটি টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা চলাকালীন অবস্থায় নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা থেকে আমলার নাম প্রত্যাহার নিয়ে সাম্প্রতিক বিভিন্ন গুজব উড়িয়ে দিয়ে প্রোটিয়া কোচ বলেন, ‘হাশিমের কাছে মনে হয়েছে টি-টোয়েন্টি খেলার কারণে ওর নিজস্ব প্রস্তুতি ব্যাহত হচ্ছে। সে জন্যই নিজেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে ও।’

এবারের বিশ্বকাপে সুনির্দিষ্টভাবে ফেভারিট বলতে নারাজ প্রোটিয়া কোচ। তবে কন্ডিশন পরিচিত থাকায় স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে কিছুটা এগিয়ে রেখেছেন তিনি। এবারের আসরের ফেভারিট দল প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমার মনে হয় ইংল্যান্ড কিছুটা এগিয়ে আছে। তবে সবকিছুই আবহাওয়ার ওপর নির্ভর করবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
আজকের সংবাদ শিরোনাম :
%d bloggers like this: